১৫ বছরের সংসার ভেঙ্গে ড্রাইভারের সাথে পালিয়ে বিয়ে শিক্ষিকার!

128

ড্রাইভারের সাথে পালিয়ে বিয়ে করার কারনে বগুড়া শেরপুরের ঘৌড়দৌড় এন.পি আলিম মাদরাসার এবতেদায়ী শাখার ইংরেজি শিক্ষিকা রোখসানা পারভিনকে নৈতিক অবক্ষয়ের দায়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটি। প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের প্রতিবাদের মুখে এ নোটিশ দেয়া হয়।

উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের খাগা গ্রামের মৃত আয়েজ উদ্দিনের ছেলে আব্দুল লতিফের সাথে বিশালপুর ইউনিয়নের বিশালপুর গ্রামের রুস্তম আলীর মেয়ে রোখসানা পারভিনের ২০০৪ সালে বিয়ে হয়। ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসের ১০ তারিখে ঘৌড়দৌড় এন.পি আলিম মাদরাসার এবতেদায়ী শাখার জুনিয়র ইংরেজি শিক্ষিকা হিসেবে যোগদান করে। চলতি বছরের ২ মে স্বামীর বাড়ি থেকে কয়েক লাখ টাকা স্বর্ণালংকার নিয়ে পালিয়ে গিয়ে রাজু নামের এক ড্রাইভারকে বিয়ে করে।

এ ঘটনা জানাজানি হলে তার স্বামীর বাড়ি ও কর্মস্থলে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। রমজান ও ঈদ-উল-ফিতরের ছুটি শেষে ওই শিক্ষিকা মাদরাসায় গেলে ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভবকেরা নৈতিক অবক্ষয়ের অভিযোগ এনে তাকে ক্লাশ নেয়া থেকে বিরত রাখে এবং মাদরাসা থেকে বের করে দেয়ার দাবি জানায়। এ ঘটনায় ওই শিক্ষিকাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে।

কয়েকজন অভিভাবক বলেন, শিক্ষক শিক্ষিকারা হলো মানুষ গড়ার কারিগর। তাদের কাছে আমাদের ছেলেমেয়েরা অনেক কিছু শিখবে। কিন্তু শিক্ষকের চরিত্র যদি এমন হয় তাহলে আমাদের ছেলেমেয়েরা তার কাছে কি শিখবে? এই শিক্ষিকা মাদরাসায় থাকলে আমাদের ছেলেমেয়েদের আর মাদরাসায় পাঠাব না।

এ ব্যাপারে ঘৌড়দৌড় এন.পি আলিম মাদরাসার এবতেদায়ী শাখার জুনিয়র ইংরেজি শিক্ষিকা রোখসানা পারভিনের সাথে কথা বললে তিনি কোন প্রশ্নের উত্তর দিতে রাজি হননি।

এ ব্যাপারে ঘৌড়দৌড় এন.পি আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ মাও. মো. আব্দুস সালাম বলেন, রোখসানা পারভিন মাদরাসায় থাকলে কোন ছাত্র-ছাত্রী ক্লাশে থাকবে না বলে হইচই করলে কমিটির সদস্যদের নিয়ে মিটিং এর মাধ্যমে তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে।