রিজেন্ট গ্রুপের ৩৩ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে উধাও জাহাঙ্গীর!

111

রিজেন্ট গ্রুপের প্রায় ৩৩ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে উধাও হয়েছেন জাহাঙ্গীর আলম। প্রতিষ্ঠানটির পূর্বাচল শাখা অফিসে মার্কেটিং ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করতেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা থানার বুগীর গ্রামের হাজী আব্দুল জলিলের ছেলে ৪৯ বছর বয়সী জাহাঙ্গীর।

প্রতিষ্ঠান সুত্রে জানা যায়, চলতি বছরের ২৭ ফেব্রয়ারি থেকে ৮ জুন পর্যন্ত জাহাঙ্গীর আলম ৫২ হাজার ইট, পাঁচ হাজার সেফটি পাথর ও ২৫০ ব্যরল বিটুমিন অভিনব কায়দায় লুট করেছে। যার বাজার মূল্য ৩২,৯৮,৫০০ টাকা ।

রিজেন্ট গ্রুপের ডিপিডি মো. মাসুদ পারভেজ জানান, জাহাঙ্গীর আলম প্রয়োজন দেখিয়ে কোম্পানী থেকে কাজের আদেশনামা (ওয়ার্ক অর্ডার) বের করত। তারপর সেই পন্য ক্রয় করে গভীর রাতে মালামাল অন্যত্র সরিয়ে বিক্রি করতো। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারী থেকে জুন পর্যন্ত প্রায় চার মাস একই প্রক্রিয়ায় মালামাল বিক্রয় করেছে।

মাসুদ পারভেজ আরো জানান, মার্কেটিং ডিরেক্টর হিসাবে দায়িত্ব পালনের সময় তার গতিবিধি সন্দেহজনক মনে করে রিজেন্ট গ্রুপরে প্রধান কার্যালয়ে বিভিন্ন সময় অভিযোগ করেন পূর্বাচল শাখা অফিসের বেশকিছু কর্মকর্তা। অভিযোগ আমলে নিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্তের ফলাফল হাতে পাওয়ার পর জাহাঙ্গীর আলমের কাছে মালামালের হিসাব চাইলে ঘটনাস্থল থেকে কৌশলে পালিয়ে যান।

তদন্তের ফলাফল এবং পালিয়ে যাওয়ার ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানায় ফৌজদারী বিধান অনুযায়ী মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মাসুদ পারভেজ।

এই বিষয়ে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানায় তদন্ত কর্মকর্তা এনামুল হক জানান, প্রায় ৩৩ লাখ টাকা মূল্যের মালামাল আত্মসাতের অভিযোগ এনে জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে মামলা করেছে রিজেন্ট গ্রুপ। মামলা আমলে নিয়ে বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখছি। মামলার স্বার্থে বেশি কিছু বলতে চাচ্ছি না।

জাহাঙ্গীর আলমের বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে মাসুদ পারভেজ বলেন, আমরা একাধিক সূত্রে জানতে পেরেছি যে, রাজধানীর খিলক্ষেত বাজার এলাকার একটি বাড়িতে অবস্থান করছেন জাহাঙ্গীর আলম। তবে তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি।