যৌন মিলনের সময় শীত্‍‌কার ছাড়া অর্গ্যাজম নয়

1022

গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, ৭৫ শতাংশ মহিলারই একাধিক বার অর্গ্যাজম হয়৷ শীত্‍‌কার না থাকলে, তা বোঝা সম্ভব নয় পুরুষ সঙ্গীর৷

মহিলাদের অর্গ্যাজম নিয়ে গবেষণা করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একদল চিকিত্‍‌সা বিজ্ঞানী৷

নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের হিউম্যান সেক্সুয়ালিটির অধ্যাপক ঝানা ভ্র্যাঙ্গালোভা জানিয়েছেন, যৌনতার সময় শীত্‍‌কারের মানে হল, আপনি আরও সুখী বা আনন্দ পেতে চাইছেন৷ তাই এই সহজাত বিষয়টি না-এড়ানোই ভালো৷ তাতে যৌন মিলন হয় ঠিকই, অর্গ্যাজমের সুখ ভোগ হয় না অনেক সময়৷

মিলনের সময় শীত্‍‌কার অনেকেই করেন না৷ আসলে ভয় পান, পাছে লোকে জানতে পারে৷ চিকিত্‍‌সকরা বলছেন, শীত্‍‌কার আসলে যৌন মিলনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ৷ সবচেয়ে বড় হল, শীত্‍‌কারই দ্রুত পৌঁছে দেয় চরম মুহূর্তে৷ বিশেষ করে অর্গ্যাজমের জন্য সবচেয়ে ভালো কাজ করে এই শীত্‍‌কার৷

এই যুগেও যৌন মিলন নিয়ে ট্যাবু রয়েছে সমাজে৷ যৌনতা নিয়ে খোলাখুলি আলোচনা করতে আজও গুটিয়ে যান অনেকে৷ যার নির্যাস, একগুচ্ছ ভুল ধারণা মনে গেঁথে যায়৷ যার উত্তর মেলে না কোথাও৷

গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, শীত্‍‌কার মানুষকে সবচেয়ে বেশি আরাম দেয় বিছানায়৷ পার্টনারকে বোঝানো যায়, ঠিক কোন জায়গায়, কতটা সুখ তিনি উপভোগ করছেন৷

কেন শীত্‍‌কার দরকার? সাইকোলজি টুডে নামক জার্নালে বলা হয়েছে, শীত্‍‌কারের সবচেয়ে বড় লাভ হল, যৌনতাটি কৃত্রিম নাকি ফেক, তা বোঝা যায়৷ তাই শারীরিক সম্পর্কের চেয়ে নয়েজ বা শীত্‍‌কার অত্যন্ত প্রয়োজনীয়৷