যে গাছ ঘরকে রাখে এসির মতো ঠান্ডা, কিভাবে?

1202

সামর্থ যাই হোক না কেন এসি কেনার মতো টাকা পকেটে আসলেই দৌড় দিচ্ছেন এসি’র দোকানে। এমন মানুষের সংখ্যা নেহাত কম না। তাইতো দোকানে ভিড় লেগেই আছে।

নিম্ন মধ্যবিত্তরাও গরমে অতিষ্ঠ হয়ে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র বা এসি (এয়ারকন্ডিশনার) কেনার কথা ভাবছেন। কিন্তু এত টাকা খরচ ও পরিবেশ দূষণের মাত্রা না বাড়িয়ে ঘরকে ঠান্ডা রাখতে পারেন সহজেই।

নাসার তথ্য মতে, পৃথিবীতে এমন কিছু গাছ রয়েছে যা ঘরের মধ্যে রাখলে ঘর ঠান্ডা থাকবে। এমনকি অক্সিজেনেরও অভাব হবে না।

অ্যালোভেরা
খুব সহজেই বৃদ্ধি পায় এই গাছ। বায়ু দূষণ রোধে অ্যালোভেরা বা ঘৃতকুমারী গাছ অদ্বিতীয়। বাতাস থেকে ক্ষতিকর পদার্থ শোষণ করার পাশাপাশি অক্সিজেন সরবরাহ করতেও এর জুড়ি মেলা ভার।

স্পাইডার প্ল্যান্ট
গাছটি দেখতে বেশ সুন্দর। কম আলো-বাতাসে বেড়ে উঠে বলে গাছটি অনেকের কাছেই জনপ্রিয়। তবে গাছটি কেবল সুন্দরই নয়, এর অনেক গুণ রয়েছে। পরিশুদ্ধকারক গাছ হিসেবে নাসার তালিকায়ও এর নাম আছে। ঘরের বাতাসে বেনজিন, ফরম্যালডিহাইড, কার্বন মনোক্সাইড, জাইলিন প্রভৃতি দূষিত পদার্থ পরিশোধন করতে এই স্পাইডার প্ল্যান্টের জুড়ি নাই। নিশ্চিন্তে আপনার ঘরে লাগাতে পারেন এই স্পাইডার প্ল্যাট।

ফিকাস
এই গাছটি ঘরে রাখার জন্য উপযুক্ত। কারণ ফিকাসের বাঁচতে খুব কম আলো ও তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়। ফলে ঘরের মধ্যে সহজেই বাঁচে এই গাছ। বাতাসের টক্সিন শুষে নিতে পারে ফিকাস। ফলে ঘরের মধ্যে বিশুদ্ধ বাতাস সরবরাহ করে এই গাছ।

পিস লিলি
ঘরের যে কোনো জায়গায় বসানো যায় এই গাছটি। বাঁচার জন্য জল, বাতাসেরও বেশি প্রয়োজন পড়ে না। ফলে সহজেই বেঁচে থাকে পিস লিলি। ঘরের মধ্যে থাকা বাতাস থেকে ক্ষতিকর উপাদান নষ্ট করে এই গাছ।

স্নেক প্ল্যান্ট
স্নেক প্ল্যান্ট সবচেয়ে বেশি উপকারে লাগবে রাত্রে। বাতাস থেকে কার্বন-ডাই-অক্সাইড শোষণ করে অক্সিজেন ছাড়ে এই গাছ। বলা হয়, বেডরুমের জন্য আদর্শ স্নেক প্ল্যান্ট। ভাল ঘুমের ক্ষেত্রে সাহায্য করে। আবার সহজে মরেও না স্নেক প্ল্যান্ট।