বাংলাদেশের ক্রিকেটে ‘নিষিদ্ধ’ জাভেদ ওমর বেলিম

111
ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক ওপেনার জাভেদ ওমর বেলিমের বিরুদ্ধে তথ্য পাচারের অভিযোগ এনেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা এ অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে।

তাই আপাতত কোনো ইভেন্টে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করা যে কোনো দলের সঙ্গে বেলিমকে যুক্ত না করতে অনুরোধ করেছে আইসিসি।

এ মর্মে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে (বিসিবি) নির্দেশ দিয়েছে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

নির্দেশনানুযায়ী, জাভেদকে আর কোনো দায়িত্ব না দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিসিবি।

অভিযোগ উঠেছে, নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চলাকালীন দলের ভেতরের তথ্য বাইরের বিভিন্ন জায়গায় পাচার করেন তিনি। তার বিরুদ্ধে আরও গভীর তদন্ত চালাবে আইসিসি।

বিসিবির এক শীর্ষ কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বোর্ডের এ কর্তা ঘটনাটিকে যথেষ্ট হতাশাজনক বলে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি বলেন, আমরা খুবই হতাশ! এরকম হলে কাদের নিয়ে কাজ করব?

গেল বছর পর পর দুটি সিরিজে বাংলাদেশ নারী দলের ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন জাভেদ। ওই টুর্নামেন্টে ভালো করেন সালমারা। সেই সুবাদে বিশ্বকাপেও একই দায়িত্ব দিয়ে তাকে অস্ট্রেলিয়া পাঠায় বোর্ড।

ওই সময় জাভেদের বিরুদ্ধে তথ্য পাচারের প্রাথমিক তথ্য পায় আইসিসি। পরে তদন্তের পর তার কার্যক্রম সম্পর্কে নিশ্চিত হয় তারা। পরিপ্রেক্ষিতে তাকে আইসিসি টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্বকারী কোনো দল থেকে দূরে রাখতে বিসিবিকে অনুরোধ করল বিশ্ব ক্রিকেটের নীতি নির্ধারণী সংস্থা।

গেল মার্চে অস্ট্রেলিয়ায় নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর্দা নামে। সেই সঙ্গে জাভেদ ওমরের সঙ্গে বিসিবির চুক্তি শেষ হয়। জাতীয় দলের হয়ে ৪০ টেস্ট এবং ৫৯ ওয়ানডে খেলেন তিনি। তার আন্তর্জাতিক অভিষেক হয় ১৯৯৫ সালে। রান তোলার গতি কম হওয়ায় দল থেকে বাদ পড়লে অবসর নেন ডানহাতি এ ওপেনার।

তথ্যসূত্র: ক্রিকবাজ