ঢালিউড জগত নির্ভার যেসব তারকা ও সিনেমায়

24

বছরের অন্যান্য সময়ের চেয়ে ঈদে সিনেমা মুক্তি নিয়ে প্রযোজক-পরিচালকের তোড়জোড় থাকে বেশি। দর্শকেরাও অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন তাঁদের প্রিয় নায়ক-নায়িকার ছবি প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে দেখার। দর্শকের এই আগ্রহের ব্যাপারটি মাথায় রেখে প্রেক্ষাগৃহ কর্তৃপক্ষ ও প্রদর্শকেরা সারা দেশে সিনেমা মুক্তির সিদ্ধান্ত নেন। এই ঈদেও তেমন চিন্তাভাবনা করে প্রেক্ষাগৃহমালিকেরা সিনেমা মুক্তির সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি এবং সারা দেশের নামকরা কয়েকটি প্রেক্ষাগৃহের প্রতিনিধির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এবারের ঈদে তাঁরা যে অভিনয়শিল্পীদের ছবি চালাতে আগ্রহী, তাঁদের মধ্যে শাকিব খান অন্যতম।

ঈদে মুক্তির মিছিলে এখন পাঁচটি সিনেমার নাম জোরেশোরে শোনা যাচ্ছে। শেষ মুহূর্তে হিসাবটা পাল্টেও যেতে পারে। গতকাল সোমবার পর্যন্ত পাওয়া খবরে, পাসওয়ার্ড, আবার বসন্ত, গোয়েন্দাগিরি, প্রেমচোর ও নোলক আছে এই ঈদে মুক্তির মিছিলে। পাঁচটির মধ্যে তিনটি ছবির ছাড়পত্র হাতে পেয়েছেন প্রযোজকেরা। শাকিব খানের পাসওয়ার্ড ছবির শুটিং চলছে তুরস্কে। প্রেমচোর ছবিটি ছাড়পত্রের জন্য কয়েক দিনের মধ্যে জমা পড়বে। এদিকে কে নোলক ছবির পরিচালক, তা নিয়ে প্রযোজক-পরিচালকের আইনি জটিলতা চলছে। যদিও ছবিটি সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে প্রযোজক সাকিব সনেটের নামেই।

ঢাকার ঐতিহ্যবাহী প্রেক্ষাগৃহ মধুমিতার স্বত্বাধিকারী ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বললেন, পাসওয়ার্ড ছবিটি তাঁরা ঈদে মুক্তি দিচ্ছেন। এ নিয়ে ছবিটির প্রযোজক ও নায়ক শাকিব খানের সঙ্গে তাঁর কথাবার্তা চূড়ান্ত হয়েছে। তিনি বলেন, ‘গত বছরের ঈদুল আজহায় সর্বশেষ শাকিব খানের ছবি মুক্তি পায়। সে হিসাবে কয়েক মাস পর দেশের প্রেক্ষাগৃহে তাঁর সিনেমা মুক্তি পেতে যাচ্ছে। দর্শকেরা মধুমিতায় তাঁর সিনেমা আগ্রহ নিয়ে দেখেন।’

যশোরের বিখ্যাত প্রেক্ষাগৃহ মণিহার। ১ হাজার ৪৩০ আসনের এই প্রেক্ষাগৃহ পাসওয়ার্ড ছবিটির ব্যাপারে আগ্রহী বলে জানালেন এর ব্যবস্থাপক তোফাজ্জল হোসেন। তিন যুগের বেশি সময় ধরে কর্মরত তোফাজ্জল এখন প্রেক্ষাগৃহটির ব্যবস্থাপক ও হিসাবরক্ষক। গত রোববার সকালে ঈদের ছবির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে তো পছন্দের সুযোগ নেই। শাকিব খানই হচ্ছেন ব্যবসায়িক নির্ভরতা। তিনি আমাদের দেশের একক নায়ক হয়ে গেছেন। আমাদের এসব প্রেক্ষাগৃহে আরিফিন শুভ আর সিয়ামের ছবির ব্যাপারেও দর্শকের আগ্রহ দেখেছি। শাকিবের কারণে বুবলীর চাহিদা। অন্যদিকে মাহি, পরীমনি ও ববি দর্শক টানার মতো অবস্থা তৈরি করতে পারেননি।’

ঈদের ছবির কথা বলতে গিয়ে একটু পেছন ফিরে তাকালেন তোফাজ্জল হোসেন। তিনি বলেন, ‘কী সুন্দর সময় ছিল। নায়ক-নায়িকার সুস্থ প্রতিযোগিতা হতো। একটা সময় রিয়াজ, ফেরদৌস, শাকিল খান, মান্না, মৌসুমী, শাবনূর, পপি, ওমর সানী—এঁদের সিনেমা মুক্তি পেত। প্রতিযোগিতামূলক বাজার ছিল। এখন তো বাধ্য হয়ে শাকিবের সিনেমা প্রদর্শন করতে হয়। শাকিবের পর আরিফিন শুভ ও সিয়ামের ছবির নিয়েও আগ্রহ দেখেছি। কিন্তু তাঁদের সিনেমা তো আর নিয়মিত পাই না।’

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির উপদেষ্টা সুদীপ্ত কুমার দাস বলেন, ‘এক দশকের বেশি সময় ধরে একক নায়ককে কেন্দ্র করেই আমাদের চলচ্চিত্র ঘুরপাক খাচ্ছে। একটা সময় যেমন রাজ্জাকের সঙ্গে শাবানার ছবি মুক্তি পেলে ছিল ফার্স্ট ক্লাস। শাবানা-আলমগীর থাকলেও কিন্তু মন্দ না। কবরী, ববিতা ও শাবানার মতো ক্রেজ এখন পর্যন্ত আর কোনো নায়িকা অতিক্রম করতে পারেননি। এরপর মৌসুমী, শাবনূর, পপি, পূর্ণিমার ব্যাপারে দর্শকের আগ্রহ চোখে পড়ার মতো ছিল। এখন শাকিবই দর্শক টানতে পারেন। ঢাকা অ্যাটাক দিয়ে আরিফিন শুভকে নিয়ে একটা সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল। এই ঈদে শুভর ছবি নেই।’

ঢাকার বলাকা প্রেক্ষাগৃহ ঈদে মুক্তি দেবে তারিক আনাম খান ও স্পর্শিয়া অভিনীত আবার বসন্ত ছবিটি। ছবিটি নিয়ে এই প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ সাজিদ আলী বলেন, ‘আমাদের প্রেক্ষাগৃহের দর্শকেরা শিক্ষার্থী। মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে আসা। আমাদের দর্শকেরা ছবিতে সুন্দর গল্প দেখতে চান। এই ছবির ট্রেলার দেখে আমাদের মনে হয়েছে, আমাদের দর্শকের উপযোগী ছবিটি। এখানে নায়ক-নায়িকা খুব একটা ফ্যাক্টর মনে করিনি। গল্পটাকে আমাদের নায়ক মনে হয়েছে।’

ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্সের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ জানালেন, রোববার পর্যন্ত তাঁরা এখনো ঈদের কোনো সিনেমা চূড়ান্ত করেননি। তবে শাকিব খানের পাসওয়ার্ড নিয়ে আগ্রহ রয়েছে। ছবিটি নিয়ে তাঁদের সঙ্গে শাকিব খানের আলাপও এগিয়েছে।

বাংলাদেশ বুকিং এজেন্ট সমিতির সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও চলচ্চিত্র প্রযোজক, পরিবেশক জাহাঙ্গীর আলম সারা দেশে ১৯টি প্রেক্ষাগৃহের সঙ্গে যুক্ত। এর মধ্যে ৪টি ভাড়ায় পরিচালনা করেন এবং ১৫ টিতে সরাসরি বুকিং দেন। এবারের ঈদে ১৯ প্রেক্ষাগৃহের মধ্যে ১৫টি পাসওয়ার্ড ও ৪ টিতে নোলক মুক্তির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছেন তিনি। দুটি সিনেমারই নায়ক শাকিব খান।