“আমি হিন্দু, মুসলিমও” – সিঁদুর নিয়ে ফতোয়ার জবাব দিলেন নুসরাত

1055

অভিনয় থেকে রাজনীতিতে আসার পর থেকেই বিতর্কে জর্জরিত নুসরত জাহান। প্রায় তিন লক্ষের বেশি ভোটে জিতেও রেহাই নেই তাঁর। কখনও পোশাক, কখনও সেলফি, কখনও আবার সিঁদুর- বারবার বিতর্কের মুখে পড়তে হচ্ছে নুসরাতকে। দেওবন্দের ফতোয়া জারি হওয়ার পর এবার জবাব দিলেন বসিরহাটের সাংসদ।

গত ১৯ জুন সাত পাকে বাঁধা পড়েন নুসরাত জাহান ও নিখিল জৈন। তুরস্কের বোদরুমে বন্ধু ও ব্যবসায়ী নিখিল জৈন-এর সঙ্গে বিয়েটা সেরেই ফেলেছেন তৃণমূলের সাংসদ ও অভিনেত্রী নুসরাত জাহান। মহাসমারোহে পালন হয়েছে তাঁর বিবাহের অনুষ্ঠান।

সেই সংক্রান্ত ছবিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে। আর তাতেই বেজায় চটেছে উত্তরপ্রদেশের দারুম উল দেওবন্দ। এমনিতেই গোটা দেশে ইসলাম বিরোধী কোনও কাজ হলেই তাঁরা হুমকি দিয়ে থাকেন। এবার তাঁদের নিশানায় টলি অভিনেত্রী ও সাংসদ নুসরাত জাহান। মূলত নিজ ধর্মবাদে অন্য ধর্মে বিয়ে করার জন্য ও মাথায় সিঁদুর পড়ার জন্য ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন দারুম উল দেওবন্দ সংগঠনের সদস্যরা। তাঁরা এও জানিয়েছেন নুসরাতের উচিত ছিল নিজের ধর্মের কারোর সঙ্গে বিয়ে করার কিন্তু ভিন্ন ধর্মে বিয়ে করে ভুল করেছেন তিনি। পাশাপাশি তাঁরা এটাও জানিয়েছেন এই বিয়েকে ইসলামের ভাষায় নাকি ‘হারাম’ বলে। এরই সঙ্গে তাঁরা জানিয়েছেন নুসরাত গলাতে মঙ্গলসূত্র ও সিঁদুর পরে খুবই ভুল কাজ করেছেন।

এ বার এই ঘটনা নিয়ে নিজেই মুখ খুললেন অভিনেত্রী সাংসদ নুসরাত জাহান ৷ শনিবার এই নিয়ে একটি বিরাট ট্যুইট করেছেন নুসরাত ৷ তিনি লেখেন, ‘ঐক্যবদ্ধ ভারতের প্রতিনিধি৷ যা কিনা সমস্তজাতি, ধর্মমত এবং ধর্মের বেড়াজালের ঊর্ধ্বে ৷ আমি সমস্ত ধর্মকেই শ্রদ্ধা করি ৷ আমি নিজেকে এখনও একজন মুসলিম ৷ আর আমার পরণের জন্য কী বাছব, তা নিয়ে কারও কোনও বক্তব্য পেশ করার প্রয়োজন নেই ৷’’