অবসর নিয়ে ভাবছেন মাশরাফি

182

আজ মহানায়ক তো কাল খলনায়ক- দেশীয় মনোভাবের এমন চরমপন্থার সব শেষ শিকার মাশরাফি বিন মর্তুজা। ভারতের কাছে হারের পরই তিনি বসেছিলেন দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের সঙ্গে। পাকিস্তান ম্যাচ নয়, নিজের অবসর পরিকল্পনাই নাকি করেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

হাঁটুতে সাতটি অস্ত্রোপচার হয়েছে। তাঁর অবসরের গুঞ্জন উঠেছে সম্ভবত তার চেয়েও বেশি। এবার নিজেই ভাবতে শুরু করেছেন। ৫ জুলাই লর্ডসে অনুষ্ঠেয় পাকিস্তান ম্যাচেই কি চূড়ান্তভাবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে সরে দাঁড়াবেন মাশরাফি বিন মর্তুজা? শেষ সিদ্ধান্ত তাঁরই।

অনেকের মতামত, জুলাইয়ের শেষভাগে শ্রীলঙ্কা সফর দিয়েই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিন মাশরাফি। কিন্তু শ্রীলঙ্কার ওই সফরে যাওয়ার ব্যাপারে নাকি বিশেষ আগ্রহ নেই মাশরাফির। শরীরে বিশ্রাম প্রাপ্য।

বিকল্প হিসেবে আরেকজনের ইচ্ছা ক্রিকেট বোর্ড যদি কোনো একটি দলকে দেশে এনে একটি সিরিজের ব্যবস্থা করে, তাহলে মন্দ হয় না। দেশের মাটিতে বিদায় নিতে চান সব ক্রিকেটারই, মাশরাফিও ব্যতিক্রম নন। কিন্তু ঠাসা ক্রিকেট সূচির মাঝে কোনো দলকে কি সহসা নিমন্ত্রণ করতে পারবে বিসিবি?

তৃতীয় বিকল্প পাকিস্তান ম্যাচ। দেশে যদি সিরিজ আয়োজন সম্ভব না হয়, তাহলে বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচে, সেটাও লর্ডসের মতো মাঠেই না হয় অবসর নিন মাশরাফি বিন মর্তুজা? যত দূর জানা গেছে, অধিনায়ক শুধু শুনেছেন। নিশ্চিত কোনো সিদ্ধান্তের কথা এখনো সতীর্থদের জানাননি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ভীষণ ব্যস্ত! বিশ্বকাপের আগে মাশরাফির হাতে ট্রফির স্বপ্ন দেখেছিলেন যাঁরা, তিন ম্যাচ পর থেকে তাঁর অকার্যকারিতা নিয়ে আলোচনা শুরু করে দেয় তাঁদের সিংহভাগই। অবস্থা এমনই যে, মনে হতে পারে মাশরাফি না খেললে কাপই জিতে ফেলত বাংলাদেশ! এ মানসিকতা উদ্বেগ ছড়িয়েছে দুর্দান্ত সফল এক সিনিয়র ক্রিকেটারের মনেও। তিনি অতীতে দেখেছেন। তাই ভালো করেই জানেন আজ যাঁরা মাথায় তুলে নাচছেন একটু এদিক-সেদিক হলেই সমালোচনার ঝোড়ো হাওয়া উড়িয়ে দেবে তাঁকেও।

এক সিনিয়র ক্রিকেটার বলছিলেন, ‘একজন মানুষ এক যুগেরও বেশি সময় ধরে দলকে সার্ভিস দিয়েছে। সেই তাকে আপনি গোটা কয়েক ম্যাচ দিয়ে বিচার করে ফেলবেন? এটা ঠিক যে মাশরাফি ভাই আগের ফর্মে নেই। একদিন তিনি খেলা ছেড়েও দেবেন। তাই বলে তাকে নিয়ে অসম্মানজনক কথা বলবেন কেন? দলের জন্য তো তিনি কম করেননি। সেটার প্রতিদান কি উনার প্রাপ্য না?’ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই ক্রিকেটারের ধারণা, ‘মাশরাফি ভাই রাজনীতিতে গেছেন বলেই কি সমালোচনা এত বেশি হচ্ছে? আমার তা-ই মনে হয়।’

ক্রিকেটে অবশ্য অতীত অবদানের কথা কেউ মনে-টনে রাখে না! বর্তমানেই কড়া নজরদারি সবার। নইলে মাশরাফির সঙ্গে তামিম ইকবালের অবসরের দাবিও কেন উঠবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে? শুনে আরেক ক্রিকেটারের বিস্ময়, ‘বলেন কি? তাই নাকি?’