বনসাই তৈরিতে প্রয়োজন পরিচর্যা

‘ট্রে’ বা টবে বর্ধনশীল উদ্ভিদের শিল্পিত সংরক্ষণই বনসাই। উদ্ভিদের সংরক্ষণ এবং নিবিড় পরিচর্যায় এটি একটি নিপুণ জাপানিজ শিল্পকর্ম। জাপান ছাড়াও চীন এবং ভিয়েতনাম অঞ্চলেও বনসাইয়ের নিজস্ব ঐতিহ্য এবং শিল্পরীতি রয়েছে।

বনসাই একটি দীর্ঘমেয়াদি পরিচর্যা এবং টব বা পাত্রে উদ্ভিদকে দৃষ্টিনন্দন আকৃতি দানেরও অভিনব কৌশল।

বনসাই তৈরির জন্য উদ্ভিদের কাটিং, চারা অথবা ক্ষুদ্রাকৃতির গাছকেই প্রাথমিকভাবে নির্বাচন করা হয়। বহুবর্ষজীবী কাষ্ঠল বৃক্ষ অথবা গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। স্বাভাবিকভাবেই পট বা পাত্রে সংরক্ষিত উদ্ভিদটি ডালপালা ছড়ায়। গাছের মূল, মুকুল প্রুনিং বা কেঁটেছেটে টবের মধ্যেই বন্দিদশায় বৃদ্ধি ঘটানো হয়। গাছের বৃদ্ধিকে পরিকল্পিতভাবে সীমিত রাখার জন্য সারা বছরই পরিচর্যার প্রয়োজন পড়ে।

বনসাই আর বামনাকৃতি বা খর্বাকার উদ্ভিদ এক নয়। খর্বাকার উদ্ভিদ জেনিটিক্যালি উদ্ভাবিত; তা মূলত গবেষণাধর্মী কাজে সংরক্ষণের জন্যে। অন্যদিকে বনসাই তৈরির জন্য নির্বাচিত উদ্ভিদটি বাড়ন্ত উদ্ভিদের চারা ও বীজ থেকে উত্পাদিত।

বনসাই তৈরির কিছু বিশেষ কলা-কৌশল রয়েছে। যেমন প্রুনিং, লিফট্রিমিং, ওয়াইরিং, ক্লাম্পিং, গ্রাফিটং, ডিফলিয়েশন প্রভৃতি।