বদ অভ্যাসেরও ভালো গুন আছে!

এটা চিরন্তণ সত্য যে, সবার মধ্যেই কিছু না কিছু বদ অভ্যাস থাকে৷ যেসব কারণে হয়ত তারা অপ্রিয়ও হন অনেকের কাছে৷ কিন্তু তাদের মুখ বন্ধ করতে পারবেন আপনিও৷ শুনলে অবাক হবেন আপনার বদ অভ্যাসেরও কিছু ভালো গুন রয়েছে৷ যা আপনাকে রাখতে পারে সুস্থ্য৷ তাই সেসব বদঅভ্যাস অল্প বিস্তর থারলে ক্ষতি নেই৷

১) কফির প্রতি আসক্তি
সকালে এক কাপ কফি না হলে দিনের শুরু হয় না অনেকেরই৷ অথবা সারাদিনের ক্লান্তি দূর করে কাজে মনোযোগ ফিরিয়ে আনতে কফির কাপের দিকে কে না হাত বাড়ায়? এটাকে বদভ্যাস মনে করলেও দুই এক কাপ কফি আপনার মানসিক শক্তি বাড়ায় একথা সত্যি। তার পাশাপাশি কমিয়ে আনতে পারে টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও। তবে বিকেলের পর কফি পান না করাই ভালো কারণ এতে আমাদের ঘুমের সমস্যা হতে পারে।

২) ঘুমকাতুরে
ঘুম অনেককেই বেশি ভালোবাসে৷ অনেকেই আছেন যাঁরা ফাঁক পেলেই অল্প ঘুমিয়ে নিতে পছন্দ করেন৷ ঘুমে আসলে খারাপ কিছুই নেই। দিনে অন্তত ৭-৯ ঘন্টা ঘুমানোটা স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য জরুরী একথা আমরা সবাই জানি। তবে এর মাঝে ব্যতিক্রমও আছে, অনেকে এর থেকে কম ঘুমিয়েও ঠিক থাকেন। এক একজনের শারীরিক চাহিদা অনুযায়ী তার শরীরে ঘুমের প্রয়োজন রয়েছে৷ আর সেই অনুযায়ী আপনি যদি ঘুমিয়ে নিতে পারেন তাহলে আপনারই শারীরিক লাভ।

৩) ধীরে সুস্থে কাজ করা
একটা কাজ করার আগে ভালো করে ভেবে চিন্তেই কাজ করা উচিত৷ তাতে কাজটি অনেক সুষ্ঠভাবে করা যায়৷ একসঙ্গে অনেকগুলো কাজ করতে গেলে তাতে চাপও পড়ে আর কাজে ভুলও বেশি হয়৷ সেই কারণে কাজের ধরণ বুঝে একটু সময় নিয়ে কাজ করাই ভালো।

৪) চকলেট-প্রেমী
অতিরিক্ত চকলেট যে কারোও পক্ষেই ভালো নয় তা সবাই জানে। কিন্তু চকলেটের লোভ সামলাতে পারেন না অনেকেই! মন খারাপ থাকলে এক টুকরো চকলেট খুশি করে দেয় অনেককেই৷ কিন্তু প্রচুর চিনি দেওয়া চকলেটের বদলে ডার্ক চকলেট খাওয়া শুরু করুন। চকলেটের চাহিদাও মিটবে, স্বাস্থ্যেরও উপকার হবে। এতে আপনার হৃৎপিণ্ড ভালো থাকবে, স্মৃতি ভালো হবে এমনকি ওজনও কমবে। তাই চকলেট খেতে আর কোনও মানা নেই৷

৫) একা থাকা
অনেকেই আছেন যাঁরা একা থাকতে পারেন না৷ সবসময় বন্ধুদের সঙ্গ খোঁজেন৷ আবার এমন অনেকে আছেন যাঁরা একাই থাকতে পছন্দ করেন বেশি৷ আর এর ফলে তাঁদের অনেকেই ভাবেন অসামাজিক৷ কিন্তু মনোবিদরা বলেন অনেকের মধ্যে থাকতে থাকতে আমরা হরিয়ে ফেলছি নিজেদেরই৷ আমরা ভুলে যাচ্ছি নিজেদের বুঝতে জানতে৷ তার থেকে নিজেদের একটু গুটিয়ে মাঝে মধ্যে নিজেদের শখের পিছনে একান্তভাবে সময় দেওয়াও প্রয়োজন৷ নিজেকে ভালোবাসাও প্রয়োজন৷