ঘর সাজাতে হরেক গাছ

ঘর সাজানোর জন্যে আমরা অনেকেই প্রকিতির কাছে ফিরে যাই,ঘরে কিছু গাছপালা লাগাই, এই ক্ষেত্রে প্রচলিত কিছু গাছ বাদে অন্য কিছু আমরা হয়তো ভেবেও দেখি না কখনো, সেই money-plant বা কিছু ইনডোর ঝাউ জাতীয় গাছই লাগানো হয় । কিন্তু চাইলেই একটু বুদ্ধি খাটিয়ে আমরা ঘরে কিছু স্বাস্থ্যকর গাছ রাখতে পারি, তাহলে ঘরের দূষিত বাতাস থেকেও মুক্তি পেতে পারি আমরা।

জেনে নেয়া যাক এই ধরন এর কিছু গাছ এবং তাদের উপকারিতা:

বাটারফ্লাই পাম গাছ
আমাদের দেশে এটি খুবই জনপ্রিয় একটি ঘরোয়া গাছ। বাসার দরজা জানালা খোলা থাকলে আশেপাশের ক্ষতিকর দূষিত বাতাস ঘরে ঢুকলে এই গাছটি সেই বাতাস শোধন করতে সাহায্য করে।

মানি প্ল্যান্ট
ঘরের ফ্রিজ কিংবা অন্যান্য যন্ত্র যা থেকে সিএফসি গ্যাস নির্গত হয় এবং অফিসের ফটোকপি ও প্রিন্টার হতে যে ওজোন গ্যাস নির্গত হয় তা আমাদের বুকে ব্যথা এবং গলার খুসখুসে কাশির জন্য দায়ী। প্যান ষ্টেটের গবেষকদের মতে, বাসাবাড়ি এবং অফিস রুমে মানি প্ল্যান্ট রাখলে এটি ক্ষতিকারক সিএফসি এবং ওজোন গ্যাস শুষে নিয়ে আমাদের রক্ষা করে।গাছটি সংগ্রহ এবং রক্ষনাবেক্ষণ করাও খুব সহজ, কারো সংগ্রহ থেকে কিছুটা আপনি ছিঁড়ে এনে একটা পাত্রে কিছু মাটি দিয়ে লাগাতে পারেন অথবা শুধু পানিতেও এই গাছটি খুব সহজেই বেড়ে ওঠে, খুব বেশি যত্নের প্রয়োজন পড়ে না।

লেমন বাম
আমরা যখন মানসিক চাপে থাকি তখন এই লেমন বাম নামক গাছটি আমাদের সাহায্য করবে। ওহিও ষ্টেট ইউনিভার্সিটির গবেষণা অনুযায়ী,অনেকটা পুদিনার মত দেখতে এই গাছে রয়েছে একপ্রকার সুগন্ধ যা মস্তিষ্কে এন্ডোরফিন নামক ভালোলাগার হরমোনের নিঃসরণ ঘটায়। এই হরমোন মানুষের মানসিক চাপ কমায় এবং মন কে প্রফুল্ল করতে সাহায্য করে।

ইংলিশ আইভি
বেশীক্ষণ কম্পিউটার বা অন্যান্য মেশিন ব্যবহার করলে আমাদের মাথা ব্যথা শুরু হয়। কম্পিউটার বা অন্যান্য মেশিন থেকে কিছু উদ্বায়ী কেমিক্যাল বাতাসে মিশে যায় যা আমাদের নিঃশ্বাসের সাথে মস্তিষ্কে যায় এবং মাথাব্যথার সৃষ্টি করে। ইউনিভার্সিটি অফ জর্জিয়ার একটি গবেষণা হতে দেখা যায় ইংলিশ আইভি নামক এই গাছটি বাতাস হতে ক্ষতিকর কেমিক্যাল শুষে নেয়। ফলে ঘরের ভেতরকার বাতাস থাকে স্বাভাবিক।

পুদিনা
ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ নিউরোসায়েন্সের একটি গবেষণায় পাওয়া যায় পুদিনা গাছ মস্তিষ্ক সচল রাখতে এবং স্মৃতি শক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এর সাথে এটি ক্ষুধা নিয়ন্ত্রন এবং ওজন নিয়ন্ত্রনেও ভূমিকা রাখে। এই গাছটি সংগ্রহ এবং রক্ষনাবেক্ষণ করাও খুব সহজ,বাজার থেকে কেনা পুদিনার গোঁড়াটি ফেলে না দিয়ে একটা পাত্রে কিছু মাটি দিয়ে লাগাতে পারেন ,কিছু দিনেই নতুন পাতা এবং চারা গজাবে,যা দিয়ে আপনি আপনার রান্নার চাহিদাও মেটাতে পারবেন। এই গাছটি খুব সহজেই বেড়ে ওঠে, খুব বেশি যত্নের প্রয়োজন পড়ে না।